দ্য প্রিন্স অ্যান্ড দ্য পপার

The Prince and the Popperদ্য প্রিন্স অ্যান্ড দ্য পপার দুই মেরুর দুজন কিশোরের কাহিনী।একজন টম ক্যানটি।অন্যজনর এডওয়ার্ড টুডর।একই রকম চেহারা নিয়ে একই সময়ে তারা পৃথিবীতে আসে।টম ক্যানটি জন্ম নেয় বস্তির একিট পরিবারে।তার বাবা একজন ভিখিরি এবং চোর।টম ক্যানটি প্রতিদিনের সঙ্গি হচ্ছে  অভাব-অনটন ঝগড়া,আর উপরি পাওনা ছিল বাবার পিটুনি।মা এবং বোনদেরও তার মত,বাবা ও দাদির হীনদৃষ্টির শিকার হত।টমকে জোড় করে পাঠানো হত ভিক্ষে করতে।এডওয়ার্ড টুডর জন্ম নেয় ব্রিটিশ রাজপরিবারে,রাজা অষ্টম হেনরির ঘরে।রাজপরিবারের সদস্যদের থাকতে হত কঠিন নিয়ম শৃঙ্খলার মধ্যে।নিয়মের বাইরে যাওয়ার কোন উপায় নেই।দুটি কিশোরের না পাওয়ার কষ্ট এবং তাদের স্বপ্নগুলো মার্ক টোয়েন তার চিরাচরিত লেখনির মাধ্যমে প্রকাশ করেছেন।মানষের কিছু সৎ গুনাবলি যেমন সততা,চেষ্ট,একে অপরর প্রতি দায়বদ্ধতা খুব সুন্দর ভাবে ব্যবহার করেছেন।দ্য প্রিন্স অ্যান্ড দ্য পপার বইটি পড়লে ষোড়শ শতাব্দীর মানে তখনকার সময় ব্রিটেনে দরিদ্র মানুষের জীবনমান কেমন ছিল,তখনকার সময় রাজপরিবারের জীবন চক্র ও প্রজাদের সাথে তাদের আচরন কেমন ছিল সহজেই বুঝা যায়।মার্ক টোয়েন তার লেখার মাধ্যমে তা সহজ করে দিয়েছেন।

টমের স্বপ্ন,সে রাজপ্রাসাদের রাজাদের মত করে থাকবে।রাজা যেভাবে রাজ্য শাষন করে সেও করবে।টেমস নদীর পারে সে তাই করে কল্পনায়।আর এডওয়ার্ডের জীবন কঠিন শৃঙ্খলার মধ্যে আবদ্ধ। তার ইচ্ছা-স্বাধীন মত চলাফেরা করার উপায় ছিল না। শৃঙ্খলাবদ্ধ জীবনের প্রতি বিতৃষ্ণ এই রাজকুমার সবসময় স্বপ্ন দেখত স্বাভাবিক জীবনের।ঘটনাক্রমে তাদের দেখা হয়ে যায়।কেউই তাদের বর্তমান জীবন নিয়ে সন্তুষ্ট নয় তাই তারা তদের পোষাক পিরবর্তন করে টম হয়ে যায় এডওয়ার্ড আর এডওয়ার্ড হয়ে যায় টম।তারপর শুরু হয় তাদের বিপরীতধর্মী জীবন।একসময় ইংলেন্ড শাষন করার ভার টমের উপর আসে।দরিদ্র প্রজাদের সমস্যাগুলো ভালভাবে জানা থাকায় সে রাজ্য শাষন করতে শুরু করল মহানুভবতার সাথে।আর এডওয়ার্ড পরিচিত হতে লাগলো মানব চরিত্রের অনেক অচেনা আচরনের সাথে।অনেক খারাপ মানুষর মাঝে সে খুঁজে পেল সত্যিকারের কিছু মহৎ মানুষ।প্রতিদিন তার অভিজ্ঞার ভান্ডারে নতুন নতুন জিনিস যোগ হতে থাকে।গল্পের একটি জায়গায় গিয়ে আবার তাদের দেখা হয় এবং তারা আবার আগের জীবনে ফিড়ে যেতে চায়।এডওয়ার্ডকে সবাই প্রতারক ভাবে, কিন্তু টম তখন ডওয়ার্ডই সত্যিকারের রাজা বলে তার আগের জীবনে ফিরে যায়।বইটি বাংলা অনুবাদ  নিয়াজ মোরশেদ করেছেন।এত সহজ ভাষায় অনুবাদ করার জন্যই বইটি এত ভাল লেগেছে।

Write a Review with Facebook